www.agrovisionbd24.com
শিরোনাম:

বিলুপ্তি ঘটলো সুমাত্রান গন্ডারের

 এগ্রোভিশন ডেস্ক    [ ২৫ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার, ১১:১৮   প্রাণিসম্পদ বিভাগ]



একটি প্রাণী প্রজাতির চিরতরে বিলুপ্ত হওয়ার খবর প্রকাশিত হয়েছিল গত বছর মার্চ মাসে। পৃথিবীতে টিকে থাকা একমাত্র শ্বেত গন্ডারের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এই প্রজাতিটি বিলুপ্তির তালিকায় উঠে যায়। এবার আরেকটি প্রজাতির বিলুপ্তির খবর পাওয়া গেল। এটিও একটি গন্ডার- মালয়েশিয়ায় টিকে থাকা শেষ মাদি সুমাত্রান গন্ডার। এটির মৃত্যুর মধ্য দিয়ে শেষ হলো প্রজাতিটির বিচরণ। শনিবার বোর্নিও দ্বীপে ইমান নামের ২৫ বছর বয়সী এই মাদি গণ্ডারটি মারা যায়। দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সারে ভুগছিল ইমান।

একসময় এশিয়াজুড়েই সুমাত্রান গন্ডারের বিচরণ ছিল। বর্তমানে বন্য অবস্থায় এদের আর দেখা যায় না। মালয়েশিয়ায় কর্মকর্তারা জানান, শনিবার স্থানীয় সময় ৫টা ৩৫ মিনিটে ইমান মারা যায়। মালয়েশিয়ার সাবা রাজ্যের পর্যটন, সংস্কৃতি ও পরিবেশমন্ত্রী ক্রিস্টিন লিউ বলেছেন, 'প্রাকৃতিক কারণেই এর মৃত্যু হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে শককে কারণ হিসেবে শ্রেণিভুক্ত করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, '২০১৪ সালের মার্চে ধরা পড়ার পর থেকে মৃত্যু পর্যন্ত ইমানকে অতি যত্নে রাখা হয়েছিল।'

নিয়ন্ত্রণহীন শিকার ও বন উজাড়ের কারণে সুমাত্রান গন্ডারের সংখ্যা ব্যাপকভাবে কমে যায়। এখন অবশিষ্ট গন্ডারদের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে তাদের পরস্পর থেকে বিচ্ছিন্নতা। মালয়েশিয়ায় এই প্রজাতির গন্ডারের প্রজননের উদ্যোগ নেওয়া হলেও তা সফল হয়নি।

বর্তমান বিশ্বে পাঁচ প্রজাতির গন্ডার টিকে আছে। এগুলোর দুটি আফ্রিকান ও তিনটি এশিয়ান প্রজাতি। এশিয়ানদের মধ্যে রয়েছে সুমাত্রান ও জাভান প্রজাতি। ২০১৮ সালের এক প্রতিবেদনে বিবিসি জানায়, জাভানও বিলুপ্তির মুখে রয়েছে। এশিয়ান প্রজাতির অনধিক ১০০টি সুমাত্রান গন্ডার (কেউ কেউ সংখ্যাটি ৩০-এর বেশি হবে বলে মনে করেন না) বন্য অবস্থায় ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে বলে কোনো কোনো প্রাণী বিশেষজ্ঞ ধারণা করেন। এগুলোর মধ্যে আর কোনো পুরুষ টিকে নেই বলেই বিশ্বাস।

আরও যেসব প্রাণ বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কৃষ্ণ গন্ডার, আমুর চিতাবাঘ, ফরেস্ট হাতি এবং বোর্নিও দ্বীপের ওরাংওটান। এদের কোনো কোনোটির সংখ্যা হয়তো একশ'রও কম বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। আরও যেসব প্রাণী হারিয়ে যাওয়ার পথে রয়েছে, তার মধ্যে রয়েছে সাইগা অ্যান্টিলোপ, মেরু ভালুক, ফিলিপাইন ঈগল, লিমুর, প্যাঙ্গোলিন। জানা ইতিহাসে বিলুপ্ত প্রাণী প্রজাতির মধ্যে সবচেয়ে বড় উদাহরণ ডোডো। ভারত মহাসাগরের মরিসাস দ্বীপের স্থানীয় পাখি ছিল এটি। তবে এরা উড়তে পারত না। আজ তাদের আর পৃথিবীতে দেখা যায় না। প্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণে কাজ করা আন্তর্জাতিক সংস্থা আইইউসিএন ২০১৮ সালে এক হিসাবে দেখায়, বিশ্বে পাঁচ হাজার ৫৮৩ প্রাণী প্রজাতি 'গুরুতর বিপদে'র মুখে রয়েছে।

সূত্র: রয়টার্স ও বিবিসি।




 এ বিভাগের আরও


 আজ বিশ্ব প্রাণী দিবস


 বার্ড ফ্লু ও ব্রঙ্কাইটিস নিয়ন্ত্রণে করণীয় নিয়ে বিভিসিসির ওয়েবিনার শনিবার


 মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতকে এগিয়ে নিতে কাজ করছে সরকার


 "বঙ্গবন্ধু এনিম্যাল হাজবেন্ড্রী এলইও পরিষদ,এলডিডিপি" এর কমিটি গঠিত


 ডেয়রী খাতে করোনা ভাইরাসের প্রভাব


 চলে গেলেন দেশের প্রতিথযশা ভেটেরিনারিয়ান ডা মো মাতলুবুর রহমান


 বদর উদ্দিন আহমেদ কামরানের মৃত্যুতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীর শোক


 H9N2 ভ্যাকসিন বিপণন শুরু করল এসিআই এনিমেল হেলথ্


 ডেইরি সেক্টরের উন্নয়নে সরকার ৫০০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিয়েছে: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী


 বিপন্ন প্রজাতির বাংলা শকুন উদ্ধার করলো সিকৃবির ‘প্রাধিকার’


 দিনাজপুরে খামারে আগুনে পুড়ল ৪৫ ছাগল


 বিড়ালের জন্য এতিমখানা


 লাইভস্টক অ্যাওয়ার্ড পেলেন সিভাসু'র অধ্যাপক ড.বিবেক চন্দ্র


 খাদ্যে বিষক্রিয়ায় খামারির সাত গরুর মৃত্যু


 ক্লান্তিতে গাছ থেকে পড়ে গেল পাঁচটি শকুন





সম্পাদক ডাঃ মোঃ মোছাব্বির হোসেন
ঠিকানা: বাসা-১৪, রোড- ৭/১, ব্লক-এইচ, বনশ্রী, ঢাকা
মোবাইল: ০১৮২৫ ৪৭৯২৫৮
agrovisionbd24@gmail.com

© agroisionbd24.com 2019